গরমের ছুটিতে

এই গরমের ছুটিতে বাচ্চাদের সঙ্গে ঘুরে আসুন আন্দামান

বাড়িতে বাচ্চা থাকা মানেই কোথাও বেড়াতে যেতে মন চাইলে ছুটিটা নিতে হয় বাচ্চার স্কুলের ছুটি অনুযায়ী। আর ঠিক এই কারণেই সেই সেই সময়ে ট্যুরিস্ট স্পটগুলি পর্যটকদের ভীড়ে ভরে ওঠে। বেড়াতে গিয়ে একটু নিরিবিলি খোঁজা বাঙালির মন ঠিক শান্তি পায় না। কিন্তু গরমের ছুটিতে আন্দামান ভ্রমণ কিন্তু আপনাকে অন্য অভিজ্ঞতা দেবে।

এই প্রতিবেদনে আমরা আন্দামান ভ্রমণের একটি গাইডলাইন তোইরি করে দিচ্ছি যা আপনার ভ্যাকেশনকে করে তুলবে মনোরম। 

আন্দামান ভ্যাকেশনে টিকিট বুকিং

সপ্তাহের মধ্যভাগে টিকিট বুকিংঃ সাধারণত বেশির ভাগ মানুষই নিজের অফিসের ছুটি বাঁচানোর তাগিদে উইক এন্ডেই বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করে থাকে। কিন্তু আমরা বলব যে আপনি এর ঠিক উল্টোটা করুন। অর্থাৎ উইক ডেজ-এই আপনার ভ্যাকেশনের প্ল্যান করুন। এর ফলে উইকেন্ড-এ বেড়াতে যাওয়ার তুলনায় আপনার খরচ অনেকটাই কমবে।

টিকিট বুক করুন তাড়াতাড়িঃ ভ্যাকেশন শুরু হওয়ার অনেক আগেই টিকিট বুক করুন। শুরুতে টিকিট বুক করলে আপনি আপনার মনের মত হোটেল ও রুম পছন্দ করতে পারবেন। এছাড়াও ফ্লাইটের টিকিটের মূল্য অনেকটাই কম পরবে। ধরুন আপনি মে মাসে গরমের ছুটিতে আন্দামান ভ্রমণ করতে চাইছেন আপনার পরিবারের সঙ্গে, তাহলে বুকিং শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অর্থাৎ বছরের শুরুতেই টিকিট বুক করুন।

মে মাসে আন্দামানের আবহাওয়া

এই সময়ে আন্দামানের আবহাওয়া বেশ গরম ও ভ্যাপসা থাকে। কিন্তু আপনি আপনার পরিবার নিয়ে আরামে এই সময় আন্দামানে এক সুন্দর ছুটি উপভোগ করতে পারবেন। সবথেকে কম তাপমাত্রা থাকে ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সবথেকে বেশি তাপমাত্রা থাকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মে মাসের শেষ থেকে আন্দামানে বর্ষা শুরু হয়ে যায়।   

আন্দামান কীভাবে যাবেন

আন্দামান ভ্রমণ করতে হলে সবার প্রথমে আপনাকে পৌঁছতে হবে পোর্ট ব্লেয়ারে। আর এই স্থানে আপনি পৌঁছতে পারবেন কেবলমাত্র আকাশ পথে অথবা জল পথে। কিন্তু আকাশ পথে আপনি সব থেকে তাড়াতাড়ি পৌঁছতে পারবেন।

পোর্ট ব্লেয়ার থেকে আন্দামানের যেকোনও দ্বীপে পৌঁছতে গেলে আপনাকে যেতে হবে ফেরির মাধ্যমে। তবে প্রাইভেট ফেরি কিন্তু সরকারি ফেরিগুলোর থেকে অনেক বেশি পরিস্কার হয় এবং তুলনায় অনেক তড়াতাড়ি পৌঁছে দেবে আপনার গন্তব্য স্থলে। আপনি আপনার ফেরি টিকিট বাড়িতে বসেই সংগ্রহ করতে পারেন https://gonautika.com/#/home এই লিঙ্কে ক্লিক করে। নটিকা ও সিলিঙ্ক হল আন্দামানের সবথেকে ভালো ফেরি। আর এর মধ্যে নটিকা হল আন্দামানের মধ্যে সবথেকে দ্রুতগামী ফেরি। এই ফেরির সর্বোচ্চ গতি হল ৩০ নটস।

আন্দামানে বাচ্চাদের সঙ্গে বেড়ানোর বেস্ট স্পট

হ্যাভলক দ্বীপ

যাঁরা সমুদ্র ভালোবাসেন তাঁদের জন্য হ্যাভলক দ্বীপ হল বেড়াতে যাওয়ার আইডিয়াল জায়গা। আর আপনার খুদেটিও কিন্তু খুবই মজার সময় কাটাতে পারবে এই দ্বীপে। নটিকার মনোরম ফেরি রাইড উপভোগ করার পর আপনি পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে চেক ইন করতে পারেন  হ্যাভলক হেউইজ রিসোর্টে। এই রিসর্টটি বাচ্চাদের জন্য খুবই উপযুক্ত। এরপর আপনি ঘুড়ে দেখতে পারেন রাধানগর বিচ। আর এই বিচ-এ গেলে আপনার যে অভিজ্ঞতা হবে তা সারাটা জীবনের জন্য অমূল্য ধন হয়ে থেকে যাবে আপনার স্মৃতিতে, এ কথা হলফ করে বলা যায়।

এখানকার বিচে আপনি দেখতে পাবেন রাশি রাশি জেলি ফিশ। আপনার খুদেটি যে খুবই খুশি হবে তাদের দেখে এ কথা আর না বলাই বাহুল্য। পরের দিন সকালে সপরিবারে আপনি স্কুবা ডাইভিং করতে পারেন। আর স্কুবা ডাইভিং-এর অভিজ্ঞতা মনে থাকবে চিরকাল। সত্যি কথা বলতে স্কুবা ডাইভিং হল হ্যাভলকের সবথেকে ভালো ওয়াটার স্পোর্টস।

এলিফ্যান্ট বিচ

এলিফ্যান্ট বিচ বিখ্যাত হল নানান ওয়াটার স্পোর্টসের জন্য। আর এই সমস্ত অ্যাডভেঞ্চার আপনার জীবনে রোমাঞ্চ আনতে বাধ্য করবে। এছাড়াও আপনি এখানে রোমাঞ্চকর বোট রাইডিং করতে পারেন আপনার পরিবারের সঙ্গে। গ্লাস বটম রাইড, বানানা বোট রাইড অথবা প্যারাসেলিং-এর মত এক্সাইটিং স্পোর্টসে আপনার বাচ্চা মেতে উঠতে বাধ্য।  

নীল আইল্যান্ড

আন্দামানের আর একটি অন্যতম সুন্দর দ্বীপের নাম হল নীল আইল্যান্ড। এই আইল্যান্ডের সবথেকে আকর্ষনীয় বিষয় হল এখানকার বিচের নৈসর্গিক দৃশ্য ও ওয়াটার স্পোর্টস। বাচ্চারা যেমন বিভিন্ন খেলায় মেতে উঠতে পারবে এখানে, ঠিক তেমনই এখানকার প্রাকৃতিক দৃশ্য ছবি তোলার পারফেক্ট ব্যাকগ্রাউন্ড দেবে আপনাকে। এছাড়াও এই দ্বীপে আসার যে অভিজ্ঞতা আপনার হবে, অর্থাৎ নটিকার সমুদ্র ভ্রমণ আপনাকে ও আপনার পরিবারকে মোহিত করে তুলবে।  

এই দ্বীপে পৌঁছানোর পর আপনি মেতে উঠতে পারেন বিভিন্ন ওয়াটার স্পোর্টসে। আপনি ধীরে ধীরে বুঝতে পারবেন যে কেন বছরের পর বছর সারা বিশ্ব থেকে মানুষ ছুটে আসে এই দ্বীপে।

পোর্ট ব্লেয়ার

আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের রাজধানী হল পোর্ট ব্লেয়ার। এই দ্বীপে আছে সেলুলার জেলের মতো বিভিন্ন আকর্ষণীয় দেখার বিষয়। আপনার বাচ্চাকে আপনি সেলুলার জেলের ইতিহাস বলার মাধ্যমে ব্রিটিশ রাজের একটা উল্লেখিত দিক হাতে-কলমে শেখাতে পারবেন। তাকে শেখাতে পারবেন কীভবে ব্রিটিশরা এখানে কলোনি গড়ে তুলেছিল, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের নানান অজানা ইতিহাস। সর্বোপরি নেতাজি সুভাস চন্দ্র বসুর দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ চলাকালীন অবদানে জড়িয়ে থাকা আন্দামানের কাহিনী। ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সাক্ষী আজও বহন করছে এই সেলুলার জেল। এখানেই আপনি সন্ধ্যাবেলা পরিবারের সঙ্গে দেখতে পারেন লাইট অ্যান্ড সাউন্ড শো এবং জানতে পারবেন ভারতীয় স্বদেশী আন্দোলনের বিস্তির্ণ ইতিহাস। এছাড়াও আপনি সমুদ্রিকা নাভাল মেরিণ মিউজিয়ামের মতো বিভিন্ন মিউজিয়াম ঘুরে দেখতে পারেন। আপনার বাচ্চার জন্য একটা এডুকেশনাল ট্যুরও হয়ে যাবে এখানে।

কোথায় থাকবেন

সপরিবারে আপনি পোর্ট ব্লেয়ারের হোটেল নর্থ রিফ-এ থাকতে পারেন। হ্যাভলকে থাকতে পারেন হেউইজ হ্যাভলক আইল্যান্ড রিসর্টে এবং নীল আইল্যান্ডে থাকতে পারেন হলিডে ইন বিচ রিসর্টে। বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে আন্দামানে বেড়াতে গেলে এই কয়েকটি থাকার জায়গা হল উল্লেখযোগ্য। এই হোটেলগুলির স্টাফেদের বন্ধুত্বপূর্ণ ব্যবহার ও সার্ভিস আপনাকে মুগ্ধ করবে। আর এখানকার সুমিং পুল যে আপনার বাচ্চার খুবই প্রিয় হয়ে উঠবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। 

আন্দামান ট্রিপে প্যাকিং

আন্দামানের মতো ট্রপিক্যাল জায়গায় ছুটি কাটাতে গেলে সঙ্গে অবশ্যই এই জিনিসগুলি রাখুন।

  • সানগ্লাস
  • টুপি
  • সুঁতির কাপড়, হালকা রঙের জামা
  • সাঁতার পোশাক
  • স্লিপার
  • সানস্ক্রিন
  • মশা মারার তেল
  • ছাতা অথবা বর্ষাতি

 

আন্দামানে পারিবারিক ভ্রমণের কিছু পরামর্শ

পরিবার ও বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে আন্দামান বেড়াতে যাওয়ার আগে অবশ্যই এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন।

  • বিচে খোলা জায়গায় প্রস্রাব করা থেকে বিরত থাকুন। আন্দামানের নৈসর্গিক সৌন্দর্যতা বজায় রাখার দায় আপনারও।
  • হাতে যদি সময় কম থাকে তাহলে আপনার ভ্রমণ সূচি বেশি বাড়িয়ে ফেলবেন না।
  • পরিবারকে নিয়ে গেলে অবশ্যই সঙ্গে গাইড রাখুন। তাহলে অনায়াসে আন্দামানের প্রধান প্রধান পর্যটনের জায়গাগুলি সাশ্রয়ী মূল্যে পরিদর্শন করতে পারবেন।
  • মুক্ত অথবা কোরালের মত হ্যান্ডিক্রাফটের জিনিষ আপনি সমস্ত আন্দান জুড়ে সার্টিফায়েড দোকানে কিনতে পারবেন ফিক্সড মূলে। দরাদরি করতে যাবেন না।
  • আবহাওয়া গরম ও ভ্যাপসা হওয়ার কারণে অবশ্যই জল বেশি করে খান। দোকান থেকে প্লাস্টিকের বোতলে ভরা জল কিনে খাওয়ার থেকে চেষ্টা করুন নিজেদের বোতলে জল নিয়ে যেতে।
  • হোটেলের বাইরে পা রাখলে অবশ্যই পর্যাপ্ত পরিমাণে দেহের খোলা জায়গায় সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

তাহলে আর অপেক্ষা কিসের জন্য। আন্দামান ভ্রমণের জন্য এখনই টিকিট বুক করে ফেলুন এবং এই বছরে আপনার বাচ্চার গরমের ছুটি করে তুলুন রঙিন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

aa
Follow us
BOOK NOW